f

Get in on this viral marvel and start spreading that buzz! Buzzy was made for all up and coming modern publishers & magazines!

Fb. In. Tw. Be.

বিড়ালের খাদ্য: কোন কোন পুষ্টি আপনার বিড়াল বাচ্চার দরকার

মানুষের মতোই বাচ্চা অবস্থা থেকে বিড়ালেরও প্রয়োজন সুষম আহার। আপনার পোষ্যর পাতে কী কী খাবার দিলে, তা থেকে সে প্রয়োজনীয় উপাদানগুলো পাবে, তা একবার দেখে নেওয়া যাক।

১) ভিটামিন: আপনার পোষ্যের শরীরের সমস্ত কিছুর জন্য দরকার ভিটামিন। দৃষ্টিশক্তি, হাড়ের বৃদ্ধি এবং মেটাবলিজমের জন্য প্রয়োজন ভিটামিন। যদি ওর পা কোনও ভাবে কেটে যায় তবে ভিটামিনই ওর রক্তপাত বন্ধ করে দ্রুত চামড়ার ক্ষত সারিয়ে তোলে। বিড়ালের খাদ্যে ভিটামিনের প্রধান সূত্র হল চিকেন লিভার, ইস্ট এবং শস্যদানা।

২) মিনারেলস: শক্ত দাঁত আর হাড় তৈরির জন্য চাই মিনারেলস। ওর মেটাবলিজমের জন্যও দরকার মিনারেলস। এর মধ্যে রয়েছে ক্যালসিয়াম, ফসফরাস, পটাশিয়াম, সোডিয়াম ক্লোরাইড এবং ম্যাগনেসিয়াম। খাবারে মিনারেল বেশি পরিমাণে থাকলে টক্সিক হয়ে পড়ার আশঙ্কা থাকে। আবার পরিমাণে কম হলে বিড়ালের মিলারেল ডেফিশিয়েন্সি হয়। বাজারজাত কিটেনফুড-এ থাকে সমস্ত রকম মিনারেল। এই মিনারেলের সূত্র হল মাছ, মাংস, লিভার এবং সিরিয়ালস। বাজারজাত কিটেনফুড খাওয়ালে বিড়ালের আর কোনও মিনারেল সাপ্লিমেন্ট লাগবে না।

৩) জরুরি বা এসেনশিয়াল ফ্যাটি অ্যাসিড: আপনার পোষ্যের ত্বক এবং লোম ঠিক রাখার জন্য প্রয়োজন এসেনশিয়াল ফ্যাটিঅ্যাসিড। ফ্যাট এবং ফ্যাটিঅ্যাসিড পোষ্যকে দেবে অফুরান শক্তি। ফ্যাট থেকে পাওয়া যায় ভিটামিন এ, ডি, ই এবং কে। ক্যাটফুডের ফ্যাট এবং ফ্যাটিঅ্যাসিড আসে অ্যনিম্যাল ফ্যাট এবং ভেজিটেবল অয়েল থেকে‌।

৪) কার্বোহাইড্রেট এবং ফাইবার: কার্বোহাইড্রেটও হল শক্তির উৎস। ফাইবার হল একধরনের কার্বোহাইড্রেট যা হজমশক্তি বাড়াতে সাহায্য করে। ভাত, ভুট্টা, গম হলবাজারজাত ক্যাটফুডের কার্বোহাইড্রেট এবং ফাইবারের সূত্র।

৫) প্রোটিন: ভালো ভাবে বেড়ে ওঠা আর সবল পেশির জন্য আপনার পোষ্যের প্রয়োজন প্রোটিন। সমস্ত ধরণের প্রোটিন তৈরি হয় অ্যামিনো অ্যাসিড থেকে। আপনার পোষ্যের শরীরে রয়েছে হাজারো রকমের ভিন্ন ভিন্ন প্রোটিন, যাদের প্রতিটার আলাদা কাজ। আপনার পোষ্য তার খাদ্যকে

ভেঙে তৈরি করে আলাদা আলাদা অ্যামিনো অ্যাসিড। যা দিয়ে শরীরের প্রয়োজনীয় ভিন্ন ভিন্ন নতুন প্রোটিন সে আবার তৈরি করে নেয়। ওর ত্বক,

নখ এবং মাসল সবই মূলত প্রোটিন। কিছু কিছু অ্যামিনো অ্যাসিড আবার তার শরীরেই তৈরি হয়, সেগুলোকে বলে নন-এসেনশিয়াল অ্যামিনো অ্যাসিড। এসেনশিয়াল অ্যামিনো অ্যাসিড তার খাদ্যে থাকা প্রয়োজন। কারণ বাচ্চা বিড়ালেরা সেটা নিজেরা তৈরি করে নিতে পারে না। যে কোনও বাজারজাত ক্যাটফুডে মাংস, ডিম, মাছ, শস্যদানা এবং ইস্ট থেকে উৎপাদিত প্রোটিন দেওয়া হয়। একমাত্র বাজারজাত ক্যাটফুডই হল বাচ্চা বিড়ালের সুষম খাদ্য।

Post tags:
Post a Comment
By clicking on Register, you accept T&C
X
X